কবিতা

কবিতা

মৌচাকের মাঠে প্রেম

শীতের রাতে মৌচাকের মাঠে পুতুল সেই হাড়কাঁপানো ঠান্ডা যেখানে খোলা মাঠে তোমার-আমার হয়েছিল দেখা কুয়াশাভরা শীতের রাতে পাশাপাশি বসেছিলাম আমরা আমাকে কেন্দ্র করে আগে-পিছে তোমার কী যে ছুটাছুটি এরই ...

মৌচাকের মাঠে প্রেম

ছড়া

বাবা আমার

জন্মদাতা বাবা আমার মাথার মুকুট মণি বাবার জন্য জগৎ দেখা ভালোবাসার খনি। জীবন মাঝে বাবাই আমার শ্রেষ্ঠ আশিস দাতা কষ্ট-ব্যথায় দুখের দিনে কঠিন রণের ত্রাতা।

বাবা আমার

কবিতা

খবর দিয়ো

মন খারাপের বিকেল এলে মনে করে খবর দিয়ো রাতটা ভীষণ দীর্ঘ হলে মনে করে খবর দিয়ো। খুচরো স্মৃতি কষ্ট দিলে মনে করে খবর দিয়ো ছেড়ে যাওয়ার ভুলগুলোকে ঝেড়ে মুছে ফেলে দিয়ো।

খবর দিয়ো

ছড়া

নির্ভরতার স্থান

বাবা যখন মাথার ’পরে রাখেন তাঁরই হাত সূর্য হাসে কেটে গিয়ে আঁধার কালো রাত। বাবা হলো খেলার সাথি বাবাই আমার সব দুঃখ পেলে বাবাই আগে করেন অনুভব।

নির্ভরতার স্থান

কারও ফুফুআম্মা, কারও খালাম্মা, আত্মীয় তিনি সবার

যাঁর সঙ্গেই তাঁর পরিচয় ছিল তিনিই ভাবতেন, খালাম্মা আমাকে খুব স্নেহ করেন। কিংবা ফুফুআম্মা আমাদের মায়ের মতো...

কারও ফুফুআম্মা, কারও খালাম্মা, আত্মীয় তিনি সবার

কবিতা

বাবা মানে

বাবা মানে নির্ভরতার প্রতীক বাবা মানে জীবনচলার পথ দেখায় সঠিক। বাবা মানে বটবৃক্ষের ছায়া বাবা মানে এক পৃথিবীর মায়া। বাবা মানে পরম বিশ্বাসী দুটি হাত বাবা মানে গল্পবলার ঘুমপাড়ানি রাত।

বাবা মানে

ছড়া

ভালো থেকো বাবা

বাবা তো আর কয় না কথা থাকে তারার দেশে মাঝে মাঝে নীল গগনে বাবার মুখটা ভাসে। কোথায় আছো কেমন আছো আমার প্রিয় বাবা তুমি ছিলে খেলার সাথি তুমি আমার কাবা।

ভালো থেকো বাবা

কবিতা

ভালোবাসা ধার চাই

একটু ভালোবাসা ধার হবে? এক মুঠো ভালোবাসা দেবে আমায়? এই ধরো দশ-পনেরো দিন মনের অমাবস্যা কাটলেই তবে ফিরিয়ে দেব। স্বার্থ ছাড়া কেউ কিছু ধার দেয় না জানি না হয় আমিও উপরি কিছু ভালোবাসা দেব।

ভালোবাসা ধার চাই

কবিতা

কেউ বোঝেনি আহারে

তোমার আঘাতে ঝাঁজরা হয়েছি, ভেতর হয়েছে ধূসর তোমার জন্যই মমি হয়েছি, হৃদয়কে করেছি মিসর তবু পারিনি রাখতে তোমায়, গিয়েছ চলে আমেরিকায় যুগল আঁখিকে নীলনদ করেছি তোমার অগ্নিশিখায়।

কেউ বোঝেনি আহারে

ছড়া

বটবৃক্ষ

আমার কাছে আমার বাবা শক্তিশালী সুপারম্যান তার কাছে সব জানতে পারি তার আছে অনেক জ্ঞান। মনের চাওয়া পূরণ করেন তার জুড়ি মেলা ভার বাবার মতো এমন আপন নাই তো কেউ আর।

বটবৃক্ষ
আরও