গুঞ্জনে গুঞ্জনে ঢলে পড়ছে রাতের আঁধারে।
বিষাদের তিক্ততা বুকে গুমরে ওঠে আহত যৌবন।
প্রেমাসক্ত হৃদয়ে ঝড় তুলে তুলে ক্ষয়ে গেছে কত রাত।
কত কালবৈশাখী লন্ডভন্ড করে নিয়ে গেছে ভরা পূর্ণিমার আলো।

দখিনা হাওয়ায় উত্তাল ঢেউয়ে আসেনি কেউ মনের খিল খুলে,
বাসেনি ভালো প্রজাপতির ডানায় প্রেম গেঁথে গেঁথে।
নৈঃশব্দ্যের ভাঙা পাঁজরে লাগায়নি কেউ ভালোবাসার ছোঁয়া।
জীবনসায়াহ্নে নেতিয়ে পড়ে চুপসে গেছে পুঁইডগা।

আঁধারের যাত্রী হয়ে আঁকড়ে ধরে একাকিত্বের
নিঃসীম অন্ধকার।
নির্ঘুম কাটিয়ে দেয় বোবা ব্যথায় অচেতন হয়ে!
পৃথিবী ঘুমিয়ে যায়, ঘুমায় না কেবল এলোমেলো
যন্ত্রণার পাহাড়।

শরৎ মেঘের ধারে বসে থাকে এক জোড়া ভেজা চোখ।
সোনালি সাথি হয়ে সঙ্গ দিয়ে যায় একান্তে গোপনে।
নিঃসৃত হয় ক্ষণে ক্ষণে যন্ত্রণার কড়া নেড়ে;
একঘেয়ে জীবনের হয় না অবসাদ
আঁধারে ভেসেছে তাই আঁধারে খুইয়েছে তার
সবটুকু তৃপ্তির সাধ।

বন্ধুদের লেখা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন