আটপৌরে শাড়ির মতো জড়িয়ে রাখি তোমায় মমতার আঁচলে।
অতি সঙ্গোপনে পরম যত্নে পরিচর্যা করি
সমীরের মৃদু মৃদু ঢেউ আছড়ে পড়ে বুকের অলিন্দে
হরিণনয়না নীরব দৃষ্টির চুম্বনে খুলে যায় মেঘের পাপড়ি।
দীপ্তিময় স্বপ্নের গাঢ় ছায়ায় হেঁটে যায় প্রেমের বিলাস
দীর্ণ হৃদয়ের তলায় মাটি খুঁড়ে চাষ করি ভবিতব্যের ফসল...
অস্তিত্বের সুরভিত ফুল ফোটে হৃদয়ের কাননে।
ঘুটঘুটে আঁধার ঢেকে বিচ্ছুরিত হয় আলোক প্রভা। প্রৌঢ়ত্বের উষালগ্ন মাড়িয়ে এখন স্বপ্ন দেখি এক দীপ্তিময় সূর্যের।
জ্ঞানের সীমাবদ্ধতার কপাট বন্ধ করে খুলে দিয়েছে এক উদার আকাশ।
সজীব বুকে বিশ্বাসঘাতকতার ছোরার আঘাতে যেখানে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছিল সেই ধূসর ভস্ম ফুঁড়ে নিঃসংকোচে আবার বেঁচে উঠেছি।
এখন আমার কণ্ঠে বাজে সুরের পরাগ।