default-image

‘করোনাকাল আমাদের শিক্ষা দিয়েছে মানুষের পাশে থাকার, মানবিক হওয়ার। পড়াশোনার পাশাপাশি আমরা শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতিচর্চা এবং সামাজিক কল্যাণমূলক কাজে অংশ নিতে মানুষের পাশে থাকতে চাই। নিজের দায়িত্ব পালন করে আদর্শ মানুষ হতে চাই। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভাকে সবাই মিলে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।’

৩ জানুয়ারি সন্ধ্যায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভার নতুন বছরের কর্মপরিকল্পনা এবং বিগত বছরের কাজের মূল্যায়ন বৈঠকে বন্ধুসভার সদস্যরা এই প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ভার্চ্যুয়াল সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় অতিথি হিসেবে যুক্ত হয়েছিলেন প্রথম আলো বন্ধুসভার সভাপতি মুমিত আল রশিদ। তিনি বলেন, ‘জ্ঞান অর্জনের মাধ্যমে আমাদের ভালো কাজগুলো বেশি বেশি করতে হবে। বিভাগের পড়াশোনার পাশাপাশি নিয়মিত অন্যান্য বই পড়তে হবে।’

বিজ্ঞাপন

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভার পদেষ্টা এবং গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জাকারিয়া খান বলেন, ‘আমাদের মানুষের পাশে থাকার মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে। সংকট সময়ে সহযোগিতায় হাত বাড়িয়ে দিতে হবে।’

প্রথম আলোর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভার উপদেষ্টা আশিকুজ্জামান বলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভা শিক্ষা, সাহিত্য, শিল্প ও সংস্কৃতিচর্চার একটি সম্মিলিত সংগঠন। বন্ধুসভা এমন সংগঠন, যেখানে বন্ধুরা কখনো সাবেক হয়ে যায় না। সব সময় ভালো কাজের বন্ধু হয়ে যুক্ত থাকে।

সভায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভার বিগত বছরের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরেন সাধারণ সম্পাদক মামুন শেখ। তিনি বলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভা শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি পুরান ঢাকার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সাধারণ মানুষের মধ্যে করোনা সচেতনতা এবং সুরক্ষায় লিফলেট ও মাস্ক বিতরণ কর্মসূচি পালন করেছে। বন্ধুদের অনলাইনে খোঁজ রাখা, মানসিকভাবে সহযোগিতা এবং প্রয়োজনে আর্থিক সহযোগিতা দেওয়া হয়েছে।

সভায় সভাপতিত্ব করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভার সভাপতি মনোয়ার হোসেন। এ সময় তিনি সভায় যুক্ত সবাইকে ধন্যবাদ জানান। সভা শেষে সাংস্কৃতিক আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভার সদস্য ইসরাফিল হোসেন, রাবেয়া রশনী ও প্রত্যাশা রায়। সভায় অর্ধশতাধিক বন্ধু অংশ নেন।

বিজ্ঞাপন
কার্যক্রম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন